দৈনিক নবতান
জনতার সংসদ

BREAKING NEWS

শেখ কামাল নেহাত সাধারন জীবন যাপনের মানুষ ছিলেন -তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী

0

স্টাফ রিপোটার : তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব ডাক্তার মুরাদ হাসান এমপি বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় ছেলে বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ কামাল নেহাত সাধারন জীবন যাপনের মানুষ ছিলেন। তিনি যে স্বপ্ন দেখে ছিলেন জীবন দিয়ে হলেও আমরা তা বাস্তবায়ন করবো।
আজ বৃহস্পতিবার (৫ আগষ্ট) জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথীর বক্তব্যে তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব ডা: মুরাদ হাসান এম পি এসব কথাগুলো বলেন।
উপজেলা শ্রশাসন ও আওয়ামী লীগের অঙ্গ ও সহযোগী সংগনের গৃহীত কর্মসুচীর মধ্যে উপজেলা পরিষদে শহীদ ক্যাপটেন শেখ কামাল এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, পরে দলীয় কার্যালয়ে শহীদ ক্যাপটেন শেখ কামাল এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল এবং পৌর ভবনে শহীদ শেখ কামালের জন্মদিন উপলক্ষে দরিদ্র ও অসচ্ছল মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী ও হতদরিদ্র মানুষের মাঝে উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক টিন ও নগদ অর্থ প্রদান এবং চাষীদের মধ্যে বীজ বিতরণ করা হয়।
গৃহীত কর্মসুচীতে প্রধান অতিথী হিসেবে ছিলেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব ডাক্তার মুরাদ হাসান। এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপহেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিন পাঠান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার শিহাব উদ্দিন আহমদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব ছানোয়ার হোসেন বাদশা,সাধারন সম্পাদক উপাধ্যক্ষ হারুন অর রশীদ,সহকারী কমিশনার (ভ’মি) ফাইযুল ওয়াসীমা নাহাত, উপজেলা পরিষদের ভাইচ চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ, মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী বেগম জহুরা লতিফ,সাধারন সম্পাাদক মাহমুদা শিখা সহ দলীয় অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন ১৯৪৯ সালের এই দিনে তিনি গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় শেখ কামাল জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতে পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে তাঁকেও ঘাতকেরা হত্যা করে।
১৯৬৯-র গণঅভ্যুত্থান ও ১৯৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধে বীরোচিত ভূমিকা পালন করেন শেখ কামাল। তিনি সরাসরি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম ওয়ার কোর্সে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হয়ে মুক্তিবাহিনীতে কমিশনন্ড লাভ করেন ও মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সেনাপতি জেনারেল এম এ জি ওসমানির এডিসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য ছিলেন। শাহাদাত বরণের সময় তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের এমএ শেষ পর্বের পরীক্ষার্থী ছিলেন এবং জাতীয় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন।
শাহীন স্কুল থেকে মাধ্যমিক ও ঢাকা কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগ থেকে বিএ অনার্স পাস করেন বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী শেখ কামাল। তিনি ‘ছায়ানট’-এর সেতার বাদন বিভাগের ছাত্র ছিলেন। মঞ্চ নাটক আন্দোলনের ছিলেন প্রথমসারির সংগঠক। বন্ধু শিল্পীদের নিয়ে গড়ে তুলেছিলেন ‘স্পন্দন শিল্পী গোষ্ঠী’। শেখ কামাল ছিলেন ঢাকা থিয়েটারের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। অভিনয় শিল্পী হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যাঙ্গনে প্রতিষ্ঠিত ছিলেন।
শেখ কামাল আবাহনী ক্রীড়াচক্রের প্রতিষ্ঠাতা। ১৯৭৫ সালের ১৪ জুলাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খ্যাতিমান অ্যাথলেট সুলতানা খুকুর সাথে তার বিয়ে হয়।

Leave A Reply

Your email address will not be published.