দৈনিক নবতান
জনতার সংসদ

BREAKING NEWS

অগ্নীকান্ডে ইউএনও’র কক্ষ পুড়ে ছাই

0

স্টাফ রিপোটার : জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে ভয়াবহ আগ্নীকান্ডে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা’র কক্ষ পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। রোববার (১৭ এপ্রিল) সকাল ৭টার দিকে উপজেলা প্রশাসনিক ভবনের তয় তলায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উপমা ফারিসা’র কার্যালয়ে এ অগ্নিকাÐের ঘটনা ঘটে। অগ্নীকান্ডের পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন জামালপুর জেলা প্রশাসক মোর্শেদা জামান।
উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় ও ফায়ার সার্ভিস সুত্রে জানা গেছে, সরিষাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের নাইট গার্ড আব্দুস সালাম গত শনিবার বিকেল ৩টা থেকে রোববার(১৭এপ্রিল) সকাল ৯ টা পর্যন্ত ডিউটিরত থাকার কথা রয়েছে। কিন্ত আব্দুস সালাম রোববার ভোর হওয়া মাত্রই চলে যান। গতকাল রোববার সকাল আনুমানিক ৭ টার দিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের কর্মরত আনসার সদস্য করিমুল ইউএনও’র কার্যালয়ের কাচের জানালা ফেটে আগুন বের হতে দেখতে পান। ফায়র সার্ভিসের লোকজন অস্নীকান্ডস্থলে আসার পুর্বেই আগুনে কম্পিউটার,এসি,সিসিটিভির মনিটর,নগদ অর্থ,সোফা,চেয়ার-টেবিল,ফাইল কেবিনেট,ফ্যান সহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র অর্থ পুড়ে যায়।এ বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে আনসার সদস্য অবগত করলে তিনি সরিষাবাড়ী ফায়ার সার্ভিস কে খবর দিলে সরিষাবাড়ী ফায়ার সার্ভিসের ২ টি ও জামালপুর ফায়ার সার্ভিসের ১ টি ইউনিট চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হন। তবে প্রাথমিকভাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন ছাড়া নিরুপণ করা যাচ্ছে না বলে জানান সরিষাবাড়ী ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র ষ্ট্রেশন অফিসার মিজানুর রহমান। তবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কক্ষে আইপিএস ও ইউপিএস এর শর্ট সার্কিটের মাধ্যমে আগুনের সুত্রপাত হতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে পিডিবি’র নির্বাহী প্রকৌশলীর কর্মকর্তাগন ধারণা করছেন। আগুনের লেলিহানে পাশের বারান্দায় কালচে আবরন পড়ে সৌন্দর্য নষ্ট সহ ভবনের ফ্লোরের আস্তরন ওঠে গিয়ে ভবনের ক্ষতি সাধিত হয়েছে। তবে কোন হতাহতের কোন ঘটনা ঘটেনি।

এ ব্যাপারে জামালপুর ফায়ার সার্ভিসের উপ সহকারী পরিচালক মোরশেদ হোসেন জানান, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কক্ষে আগ্নকান্ডের উৎপত্তিস্থল জানা যায়নি। তিনি আরও জানান,তদন্ত কমিটি গঠন করে কমিটির প্রতিবেদন দাখিল করার পর বলা যাবে কত টাকা ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে।

জানতে চাইলে সরিষাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উপমা ফারিসা বলেন,সকাল আনুমানিক ৭ টার সময় আমার কক্ষে আগুন দেখতে পান আনসার সদস্য করিমুল আমাকে অবগত করেন।পরে সরিষাবাড়ী ফায়ার সার্ভিসে খবর দিলে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নেভাতে সক্ষম হয়। প্রাথমিকভাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এখনো নিরুপণ করা যায়নি।

এ বিষয়ে জামালপুর জেলা প্রশাসক মোর্শেদা জামান বলেন,কিভাবে অগ্নিকান্ড সংঘঠিত হয়েছে তা তদন্ত করে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জানান তিনি।

এ ঘটনায় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিন পাঠান,সহকারী কমিশনার(ভুমি) ফাইযুল ওয়াসীমা নাহাত সহ সকরারী দপ্তরের প্রধানগন সহ কর্মচারীবৃন্দ প্রত্যক্ষ ও ক্ষোভো প্রকাশ করেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.