দৈনিক নবতান
জনতার সংসদ

BREAKING NEWS

ধর্ষণ মামলায় জামালপুরে এক যুবক কারাগারে।

0

সাাকির আহমেদ
ক্রাইম রিপোর্টার

জামালপুর সদর উপজেলার বিনন্দেরপাড়া গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে হৃদয় হাসান চমক ধর্ষণ মামলায় কারাগারে রয়েছেন। একি উপজেলার নারায়ণপুর গ্রামের এক যুবতী সম্প্রতি ওই যুবকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন। এ প্রেক্ষিতে জামালপুর সদর থানার পুলিশ তাকে আটক করে কারাগারে পাঠান। হৃদয় হাসান চমককে আটক ও কারাগারে প্রেরণের ঘটনা একাধিক মাধ্যম থেকে নিশ্চিত হওয়া গেছে।
একাদিক সূত্রে জানা যায়, পবিত্র রমজান মাস ও বাংলা নববর্ষের প্রথম দিনে এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনায় বিভিন্ন মহলে তার প্রতি ঘৃণারমাত্রা আরও অনেক বেড়ে গেছে। উল্লেখ্য, গত ২৩ মার্চ জামালপুর জেলা ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন উপলক্ষে এই সেই হৃদয় হাসান চমক সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হয়েছিলেন। কিন্তু তার এলাকার আওয়ামী পরিবারের তৃণমূল নেতা-কর্মীদের দাবী এই চমক কয়েকবছর আগেও ছাত্রদলের সক্রিয় কর্মী ছিলো। তার এলাকার একাদিক নেতা-কর্মীর সাথে কথা বলে তা নিশ্চিত হওয়া গেছে। আওয়ামী লীগের সুসময়ে জামালপুর সদরের বিশিষ্ট এক জনপ্রতিনিধি ছত্রছায়ায় সে আজ ছাত্রলীগের নেতা সেজে সমাজে নানান রকম অপকর্মে লিপ্ত রয়েছেন। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে জমি জবর দখল আর বিভিন্ন অনৈতিক কাজে দালালি করে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। এসব অনৈতিক কর্মকান্ডের মাধ্যমে উপার্জিত টাকায় কেনা দামী মোটরসাইকেল হাঁকিয়ে বেড়াচ্ছেন। তার বাবাকে দিয়ে সুদের ব্যবসাও পরিচালনা করাচ্ছেন। তার কুকর্ম ও নেতিবাচক কর্মকাণ্ডের প্রভাবে এলাকাবাসী আজ অতিষ্ঠ। অথচ তার বাবা এক সময় অন্যের বাড়িতে কাজ করতো। বর্তমানে তার অবৈধ সম্পদ আর কালো টাকার প্রভাবপ্রতিপত্তি দেখে এলাকাবাসী অবাক! উল্লেখ্য, ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভির তালাশ টীমের প্রতিবেদনে তার বিরুদ্ধে সরকারী সোলার কেলেঙ্কারির সংবাদ তুলে ধরা হয়েছে। এভাবেই সে অবৈধভাবে টাকা কামিয়ে রাতারাতি নিজের অর্থনৈতিক অবস্থান পরিবর্তন করে ফেলেছেন। পাপ তার বাপকেও ছাড়ে না। যার প্রমাণ সমাজবাসী আরেকবার নতুন করে পেয়ে গেছে। এলাকাবাসীর অভিমত- ছিঃ! ধিক্কার জানাই। প্রচন্ড ঘৃণা জানাই। এই পবিত্র রমজান মাসের পবিত্রতা নষ্ট করে, এমন ঘৃণিত কাজ করার জন্য তাকে ভর্ৎসনা জানিয়েছেন। এতোদিন যারা এই মুখোশধারীকে পৃষ্ঠপোষকতা করেছেন। তাদেরও সাবধান হওয়ার সময় এসেছে। সময় এসেছে চমকের মতো আরও যারা ছাত্রদল থেকে ছাত্রলীগে অথবা বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশ করেছে। তাদের সম্পর্কে সাবধান হওয়া। এমন পরিস্থিতি চলতে থাকলে। আগামী দিনে যারা আওয়ামী লীগের একনিষ্ঠ কর্মী তারা সমাজবাসীর কাছে ভোট চাইতে যেতেও লজ্জায় পড়বেন। স্থানীয় একাধিক আওয়ামী লীগ নেতা এমন মন্তব্য করেছেন। সেই সাথে তারা মতামত দিয়েছেন যে, ক্লিন সংগঠন গড়ে তুলতে চাইলে। আগাছা পরিস্কার করা অতিব জরুরীো। তাই বলতে হয় ব্যক্তির চেয়ে দল বড়। দলের চেয়ে দেশ বড়। আশা করি আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারকগণ বিষয়টি আমলে নিয়ে কার্যকর প্রদক্ষেপ নিবেন। তাই আবারও বলছি চমকের মতন সুবিধাবাদীদের বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগ তথা- ছাত্রলীগে স্থান, আশ্রয় ও প্রশ্রয় না দিয়ে দলীয় ভাবমূর্তি অক্ষুণ্ণ রাখুন। এটাই স্থানীয়দের প্রাণের দাবী। আর প্রশাসন ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনী চমকের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ যাচাই সাপেক্ষে যথাযথ ব্যবস্থা নিবেন। এই দাবী ভুক্তভোগী পরিবারের।

Leave A Reply

Your email address will not be published.