দৈনিক নবতান
জনতার সংসদ

BREAKING NEWS

স্ত্রীর মামলায় শিক্ষক জেল হাজতে

0

স্টাফ রিপোটার : জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে স্ত্রীর দায়ের করা মামলায় হাজিরা দিতে গিয়ে গত ১১ মে থেকে শিক্ষক সেলিম রেজা জামালপুর জেল হাজতে রয়েছে বলে তথ‌্য পাওয়া গেছে।
মামলা ও ভুক্তভোগী পরিবার সুত্রে জানা গেছে,সরিষাবাড়ী উপজেলার পৌরসভাধীন আরামনগর বাজার গ্রামের মৃত খালেক এর মেয়ে খালেদা পারভীন এর সাথে উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের মোনারপাড়া গ্রামের আব্দুর রশীদ এর ছেলে সেলিম রেজার ২০১৪ইং সালে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। বিবাহের ০২ (দুই) বৎসর অধিক কাল পরে সেলিম রেজার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে চাকুরী হয়। পরে শিক্ষকতা পদে বর্তমানে ১১৪নং বালিয়ামেন্দা প্রকাশ মিরকুটুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কর্মরত আছেন। তাদের বিবাহের এক বৎসর পর খালেদা পারভীন এর একটি পুত্র সন্তান হয়। যাহার বর্তমান বয়স ৭ বৎসর। চাকুরীতে যোগদানের পর হইতেই সেলিম রেজা তার স্ত্রীর উপর বিভিন্ন ভাবে শারিরীক, মানষিক নির্যাতন ও সহিংসতা মূলক আচরণ করতে থাকে। খালেদা পারভীন এর কাছে তার স্বামী সেলিম রেজা অতিরিক্ত যৌতুক দাবী করে। দাবীকৃত যৗতুকের টাকার জন‌্য খালেদা পারভীন এর উপর চাপ প্রয়োগ করতে থাকে সেলিম রেজা। সে সরকারী চাকুরীজীবি হিসেবে অন্যত্র বিবাহ করলে অনেক টাকা যৌতুক পেত বলে খালেদা পারভীন কে বিবাহ করে ঠকেছে। তাই তার চাহিদামত কোন যৌতুক পান নাই বলে খালেদার উপর ক্ষোভে নানা অযুহাতে নির্যাতন করে। নিরুপায় হয়ে খালেদা পারভীন তার ভাইয়ের বাসায় গিয়ে তার ভাইকে অবহিত করলে তারা বোনের সুখের কথা চিন্তা করে ০২ (দুই) লক্ষ টাকা দিয়ে দেয়। উক্ত ২ লক্ষ টাকা পাওয়ার পরও তার চাহিদা পূর্ণ না হওয়ায় সে সরকারী চাকুরীজীবি তাই কমপক্ষে ১০ (দশ) লক্ষ টাকা যৌতুক নিয়ে একজন মাষ্টার্স পাস নারী পাবে বলে স্ত্রীকে জানিয়ে দেয়। খালেদা পারভীন শিক্ষিত হওয়ায় সামাজিক ভাবে সম্মানের ভয়ে এবং তার বাচ্চার কথা চিন্তা করে সকল অত্যাচার সহ্য করে বাচ্চাটা একটু বড় হওয়ায় খালেদা পারভীন বিভিন্ন কিন্ডার গার্টেনে শিক্ষকতা এবং বাড়িতে টেইলারিং ও হস্তশিল্পের কাজ করে স্বমীর সংসারে আর্থিকভাবে সহায়তা করেন। এছাড়া ন্যাশনাল সার্ভিসে যোগদান করে সেই বেতনও সেলিম কে দেওয়া হয়। এর পর গত ১ বছর যাবৎ ব্র্যাক এর একটি প্রজেক্টেখালেদা পারভীন নিয়োগ প্রাপ্ত হয়ে তার বেতনের সকল টাকাই স্বামী সেলিম রেজার হাতে তুলে দেন । কোনভাবেই খালেদার স্বামীর অতিরিক্ত যৌতুকের চাহিদা মিটাতে সক্ষম হয়নি। এ ছাড়াও সেলিমের বাড়ির ঘর এবং ঘরের সকল আসবাবপত্র স্ত্রী খালেদা পারভীন ক্রয় করেছেন বলে জানা গেছে। তাদের দুজনের দাম্পত্য জীবনে খালেদা পারভীন তার স্বামী সেলিম রেজার হাতে শারিরীকভাবে নির্যাতন করায় সামাজিকভাবে ২/৩ বার গ্রাম‌্য শালিসের মাধ্যমে সমঝোতা করা হয়েছে। কিন্তু তাতেও সে সংশোধন হয় নাই। সেলিমের নির্যাতন সহ্য করেও শিশু বাচ্চাটির কথা চিন্তা করে খালেদা তার স্বামীর সাথে সংসার করে আসছে ।এর পরেও দুজনের সাংসার চলমানবস্থায় খালেদা পারভীনকে তালাক নামার কাগজ দিয়েছে বলে বিভিন্ন জনের কাছে বলে বেড়ানোর পরও সেলিম রেজা তার স্ত্রীকে সাথে নিয়ে দাম্পত্য জীবন যাপন করেছে বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় সেলিম রেজার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব‌্যাবস্থা গ্রহনের দাবীতে জামালপুর জেলা শিক্ষা অফিসারের নিকট চলতি বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারী একটি আবেদন করেছেন। এ ছাড়াও জামালপুর বিজ্ঞ সি আর আমলী আদালত সরিষাবাড়ীতে খালেদা পারভীন বাদী হয়ে তার স্বামী সেলিম রেজার বিরুদ্ধে অতিরিক্ত ১০ লক্ষ টাকা যৌতুক দাবী সহ দাবীকৃত টাকা পরিশোধে ব‌্যার্থ হওয়ায় নির্যাতন করার অভিযোগ এনে চলতি বছরের জানুয়ারী মাসে একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় চলতি বছরের গত ১১ মে হাজিরা দিতে গেলে আদালতের বিচারক সেলিম রেজার জামিন না মন্জর করে তাকে জেল হাজতে প্রেরন করেছেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.