দৈনিক নবতান
জনতার সংসদ

BREAKING NEWS

বাহে মোর কষ্ট দেখার কাও নাই

0

সামসুজ্জামান সুমন কিশোরগঞ্জ(নীনফামারী)ঃ

মানুষের জমিত একনা চালাম তুলি স্বামীকে নিয়া কোন রকম সংসার চলছিল।তাও আল্লাহ মোক থুয়া স্বামী কোনাক নিয়া যায়।মুই একনা লোক,মহিলা মানুষ কোনটে যাইম,কি করি খাইম? বুঝের পাংনা।মুই গরীব,মোর কাও নাই,টাকাও নাই।তারে জন্যে মোক কাও কিছু দ্যায়ও না।সবায় সরকারী অনুদান পায়,ভাতা পায়,মুই পাংনাা।মোর কষ্ট দেখার কাও নাই।মানুষের বাড়ি বাড়ি যেয়া ভাত খাং।ভাত না দিলে মোক উপাষ থাকের নাগে।দুঃখের সাথে এসব কথা বললেন,নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের উত্তর পুষনা কাচারী পাড়া গ্রামের মৃত নুরু মামুদের স্ত্রী কহিনুর বেগম(৬০)।সরেজমিনে গিয়ে জানাগেছে ঐ বৃদ্ধ মহিলাটির অবস্থা।

 

তিনি একনা চালাম,কোন রকম তুলে মানুষের জমিতে থাকেন।কোন কাজ করার মতো তার শক্তি নেই।৬০ বছর বয়সে কি কাজ করতে পারে।কাজ করতে গেলেও তাকে কেউ কাজ দিতে চায় না।মেয়ে ছিল বিয়ে হয়েছে।ওনাকে রেখে তার স্বামী চিনদিনের জন্য চলে যায়।এক মুঠো ভাতের জন্য মানুষের দারে দারে ঘুরেন।এক বেলা খায় আর এক বেলা না খেয়ে থাকতে হয় তাকে।মেম্বর,চেযারম্যানের কাছে অনুদানের জন্য গেলে কোন সারা পায়নি তিনি।

 

এলাকাবাসীরা জানান,তার স্বামী মারা যাওয়ার আগে বা পরে কোন মেম্বর,চেয়ারম্যান তাকে সরকারী কোন অনুদান দেয়নি।ওই অসহায় ব্যাক্তি যদি সরকারী অনুদান বা ভাতা না পায়।তাহলে কে পাওয়ার যোগ্য?আমাদের এলাকাবাসীর দাবী সরকারী কোন অনুদান আসলে ঐ মহিলাকে যেন দেওয়া হয়।

 

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.