দৈনিক নবতান
জনতার সংসদ

BREAKING NEWS

যমুনা সারকারখানার জিএম প্রশাসন (ভারপ্রাপ্ত) দেলোয়ার হোসেন কে লাঞ্চিতের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠিত

0
স্টাফ রিপোটার:জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে অবস্থিত যমুনা সার কারখানার ভারপ্রাপ্ত মহাব্যবস্থাপক (জিএম- প্রশাসন) দেলোয়ার হোসেন কে জেএফসিএল শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের নেতাদের হাতে লাঞ্চিতের ঘটনায়  মঙ্গলবার (৩ জানুয়ারী)বিসিআইসি ৩ তিন সদস্যে বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে কর্তৃপক্ষ। ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটিকে কে পাঁচ কর্ম দিবসের মধ্যে সি ও পি বরাবরে প্রতিবেদন দাখিল করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তদন্ত কমিটি ও জেএফসিএল সূত্রে জানা গেছে, সারকারখানার গেটে অফিসিয়াল সময়-সীমার মধ্যে শ্রমিক কর্মচারীদের নাম এট্রি করে কারখানায় সময় মত ও দেরীতে আসা সবাইকে খাতায় স্বাক্ষর এট্রি করে কারখানায় প্রবেশ করা নিশ্চিত করার লক্ষে যমুনা সারকারখানার জিএম প্রশাসন (ভারপ্রাপ্ত) দেলোয়ার হোসেন ও নিরাপত্তা উপ-পরির্দশক হান্নানুজ্জামান গেটে দাডিয়ে দায়িত্ব পালন করছিলেন। এ সময় দেরীতে আসা সিবিএ নেতা ময়েন উদ্দিন কে খাতায় এন্টি করে যেতে বলায় এ বিষয়টিকে অপমান জনক মনে করে কারখানার ভিতরে গিয়ে সিবিএ’র সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন ও সাধারন সম্পাদক শাহজান কে অবগত করেন।পরে কারখানার গেট থেকে মিছিল সহকারে প্রশাসনিক ভবনের সামনে সমবেত হয়। শ্রমিক কর্মচারীরা জিএম প্রশাসন শ্লোগান অকথ্য ভাষায় খোয়া গালিগালাজ এবং বদলীর দাবীতে শ্লোগান দেয়। এ বিষয়টি জেএফসিএল শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন সারকারখানার ব্যাবস্থাপনা পরিচালক মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ খান কে অবগত শ্রমিক কর্মচারীদের তোপের মুখ থেকে রক্ষার জন্য জিএম প্রশাসন দেলোয়ার হোসেন সারকারখানার গাড়ী দিয়ে কর্মস্থল থেকে বাসায় যাওয়ার নির্দেশ দেন। তিনি গাড়ীতে উঠলে তাকে গাড়ী থেকে শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক শাজাহান নেতৃতে সিবিএ’র প্রচার ও শ্রম কল্যান সম্পাদক ও মাষ্টার টেকনিশিয়ান ময়েন উদ্দিন, সহ হেলাল উদ্দিন, আব্দুল্লাহ আল মামুন জিএম প্রশাসন কে গাড়ী থেকে নামিয়ে দেয়।পরে সিবিএ’র সাধারন সম্পাদক শাহজান জিএম প্রশাসন দেলোয়ার হোসেন বলেন আপনি গাড়ী দিয়ে নয় পায়ে হেটে বাসায় যান। পরে সারকারখানা গেটে থেকে পায়ে হেটে বাসায় যান। এ সময় সিবিএ’র শ্রমিক কর্মচারী ও নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন। এ ঘটনাটি বিসিআইসির উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জি এম প্রশাসন অবগত করার প্রেক্ষিতে কতৃপক্ষ মঙ্গলবার ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। এ তদন্ত কমিটিকে পাঁচ কার্য় দিবসের মধ্যে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন। তদন্ত দলের আহবায়ক হলেন বিসিআইসির ঊর্ধ্বতন মহাব্যবস্থাপক ক্রয় শহিদুল ইসলাম। অপর দুই জন হলেন উপ-প্রধান নিরীক্ষক সর্দার নজরুল ইসলাম ও উপ-কর্মচারী প্রধান মুস্তাক আহমেদ। এদিকে এ ঘটনায় মঙ্গলবার দুপুরে কারখানার ব্যবস্থাপনা পরিচালকের কার্যালয়ে় শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের (সিবিএ)সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান জিএম প্রশাসনের নিকট ক্ষমা চেয়েছেন। যমুনা সার কারখানার ভারপ্রাপ্ত মহাব্যবস্থাপক দেলোয়ার হোসেন বলেন, আমাকে লাঞ্চিতের ঘটনায় বিসিআইসি তিন সদস্যের তদন্ত দল গঠন করে দিয়েছে। ওই তদন্ত কমিটি আজ বুধবার তদন্ত কমিটি কারখানায় এসে তদন্ত করবে। যমুনা সারকারখানার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি )মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ খান বলেন, জিএম প্রশাসন দেলোয়ার হোসেন কে লাঞ্চিতের ঘটনায় বিসিআইসির তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করে দিয়ে়ছেন। তিনি আরোও বলেন, বিষয়টি মঙ্গলবার দুপুরে আমার কার্যালয়ে় শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের নেতাদের ডেকে সমঝোতা করে দেওয়া হয়েছে।
Leave A Reply

Your email address will not be published.